Cricket (ক্রিকেট)

ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টি : এশিয়ারই আট দল!


icc-t20-world-cup-2014 bangladeshসামনের বছর বাংলাদেশে অনুষ্ঠিতব্য ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টিতে অংশগ্রহণকারী ১৬ দলের আট দলই এশিয়ার! ইতিহাসে এর আগে কখনোই আইসিসির কোনো আসরে এশিয়ার এতোগুলো দল সুযোগ পায়নি। সে হিসেবে ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টি ২০১৪ নতুন এক রেকর্ডই গড়তে যাচ্ছে। যা আসলে ক্রিকেটে এশিয়ার অভাবনীয় গৌরব যাত্রার প্রমাণ।
বিশ্ব এবার ভালোভাবেই দেখতে পারবে নতুন বোলার ও ব্যাটসম্যানদের ঝলক। বিশেষ করে এশিয়ার নতুন তারকারা দেখাবেন- কী তুমুল বেগে চলছে এশিয়ান ক্রিকেটে নতুনদের গৌরবময় যাত্রা।
বাংলাদেশসহ এশিয়ার চার দল সরাসরি সুযোগ পেয়েছে বিশ্বকাপে খেলার। বাকি দলগুলো হলো- ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা। এই চার দলের সাথে এশিয়া থেকে আরো সুযোগ পেয়েছে- আফগানিস্তান, নেপাল, আরব আমিরাত ও হংকং।
বিশ্বকাপ স্বপ্ন পূরণের পথে সবচেয়ে বেশি সাফল্য দেখিয়েছে এশিয়ার উদিয়মান ক্রিকেট শক্তি আফগানিস্তান। কোয়ালিফাই রাউন্ডে স্কটল্যান্ড ও হল্যান্ডের মতো দলকে হারিয়ে এসেছে তারা। ধারাবাহিক সাফল্যে উঠে গেছে কোয়ালিফাই রাউন্ডের ফাইনালেও। আফগানিস্তানের হয়ে ব্যাট হাতে কোয়ালিয়াই রাউন্ডে সেরা ব্যাটসম্যান নূর আলি জর্দান। তার ব্যাটিং গড় ২৯.৫, কোয়ালিয়াই রাউন্ডের দুই ম্যাচের হিসেবে। বল হাতে সেরা সামিউল্লাহ সেনওয়ারি। তিন ম্যাচে ছয় উইকেট নিয়েছেন তিনি।
কেনিয়া, ডেনমার্ক ও আরব আমিরাতের মতো দলগুলোকে হারিয়ে বিশ্বকাপ নিশ্চিত করেছে আরেক এশিয়ান দল নেপাল। সবাইকে অবাক করে হিমালয়ের দেশ পৌঁছে গেছে ক্রিকেটের উত্তপ্ত আঙিনায়। ব্যাট হাতে নেপালের হয়ে সেরা পারফর্ম করেছেন পরশ খাদকা। দশ ম্যাচে তার ব্যাটিং গড় ৩২.৮৫ রান। বল হাতে নেপালের বিশ্বকাপ স্বপ্ন পূরণে সেরা অভিনাশ করন। চার ম্যাচে ছয়টি উইকেট নিয়েছেন তিনি।
বিশ্বকাপ স্বপ্ন পূরণ করেছে কোয়ালিফাই রাউন্ডের স্বাগতিক দেশ আরব আমিরাতও। তারা হারিয়েছে নেদারল্যান্ডস, আমেরিকা, ইতালি ও কানাডার মতো দলকে। খুররম খানের ব্যাটেই মূলত স্বপ্ন পূরণ হয়েছে এশিয়া কাপের একটি আসরে খেলা এই দলটির। দশ ম্যাচে ২৫৪ রান করেছেন খুররম। বল হাতে আমিরাতের সেরা খেলোয়াড় লঙ্কান-আরব সুদীপ সিলভা। দশ ম্যাচে দশটি উইকেট শিকার করেছেন তিনি।
বিশ্বকাপ স্বপ্ন পূরণ হয়েছে এশিয়ার আরেক দল হংকংয়েরও। নামিবিয়া, আরব আমিরাত, কানাডা, উগান্ডা ও ডেনমার্ককে হারিয়ে বিশ্বকাপের সীমানায় ঢুকেছে তারা। এর আগে এশিয়াকাপের একটি আসরে খেলা হংকংয়ের বিশ্বকাপ স্বপ্ন পূরণের পথে নায়ক ছিলেন জেমি অ্যাটকিনসন। ২৩ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান আট ম্যাচে ৩০.১২ গড়ে রান করেছেন। বল হাতে হংকংয়ের সেরা ছিলেন তানভির আফজাল। দশ ম্যাচে নয় উইকেট নিয়েছেন তিনি।
উল্লেখ্য, ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টি ২০১৪ মাঠে গড়াবে আগামী বছরের মার্চ মাসে। ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে আইসিসির নতুনতম এ আসরের টিকেট বিক্রয়।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s