europeo railway-1জীপ গাড়ি, স্নাইপার এবং বৈদ্যুতিক স্কেটবোর্ড এসব অনেক আগেই হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে। তবে এবার ভিন্নধর্মী খবর শোনালেন রাশিয়ান তিন হ্যাকার। তারা বলছেন, ইউরোপীয় রেল নেটওয়ার্কে বড় ধরনের ফাঁকা জায়গা রয়েছে যার সাহায্যে সম্পূর্ণ সিস্টেমটিকেই হ্যাক করা সম্ভব। এর ফলে রেল নেটওয়ার্ক ব্যবস্থার ব্যাপক ক্ষতি করা সম্ভব বলে জানানো হয়।
আলেকজান্ডার টিমরিন, সারগে গরডেয়াছিক ও গ্লেব গ্রিস্টিয়া নামে এই তিন হ্যাকার গত বছর ডিসেম্বরে জার্মানির কমিউনিকেশন কংগ্রেস অনুষ্ঠানে তারা এ কথা জানান। তারা সেখানে দেখান, একজন ভালোমানের হ্যাকার কীভাবে সেই ফাঁকা জায়গা দিয়ে ঢুকে পুরো রেলওয়ের সিস্টেমটাকেই নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পারবে।
তারা মনে করেন, হ্যাকাররা খুব সহজেই ব্রেকিং সিস্টেমকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে। যদিও সেক্ষেত্রে বিস্ফোরক দ্রব্যের প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন তারা। হ্যাকারদের সহায়তা করার জন্য যথেষ্ট পরিমাণে উপাদান রয়েছে অনলাইনে মনে করেন তারা।
রেলের টিকিট ব্যবস্থার সময় একটা নেটওয়ার্কযুক্ত ডিভাইস ব্যবহার করে থাকে রেলওয়ে বিভাগ যেটার সাহায্যেই সিস্টেমকে কব্জা করা সম্ভব।
বর্তমানে পৃথিবীর প্রায় নানা জায়গা থেকেই হ্যাকিংয়ের কথা শোনা যায়। তবে সেই তিন হ্যাকার এটা প্রকাশ করেনি, কোনো অংশটা ঠিক ঝুঁকির মধ্যে। কারণ তাদের শঙ্কা এতে করে হ্যাকারদের কাছে বিষয়টি আরও সহজ করে তুলবে।