গাপটিল-মুনরোর তাণ্ডবে উড়ে গেল শ্রীলঙ্কা


nz_vs_slঅকল্যান্ডে দুই ম্যাচ সিরিজের শেষ টি-২০তে কিউইদের ১৪৩ রানের টার্গেট দেয় লঙ্কানরা। জবাবে মাত্র ১০ ওভারেই এক উইকেট হারিয়ে ২-০তে সিরিজ জিতে নেয় স্বাগতিকরা। ইনিংসের সূচনায় ব্যাট করতে নামেন গাপটিল ও কেন উইলিয়ামসন। আর শুরুর এই জুটি ৬.৪ ওভারে এনে দেন ৮৯ রান। অধিনায়ক উইলিয়ামসন ২১ বলে তিন চারে ৩২ রান করে অপরাজিত থাকেন।
অকল্যান্ডে এদিন গাপটিল ও মুনরো ব্যাট হাতে তাণ্ডব চালিয়েছেন। ১৪৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে গাপটিল ফিফটি পূর্ণ করেন মাত্র ১৯ বলে। আউট হওয়ার আগে গাপটিল ২৫ বলে ৫টি ছক্কা ও ৬টি চারে খেলেন ৬৩ রানের ঝোড়ো ইনিংস। তার ১৯ বলের ফিফটি টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানের দ্রুততম। তবে তার এই রেকর্ডটা ২০ মিনিটও স্থায়ী হয়নি!
গাপটিলের বিদায়ের পর ক্রিজে আসা কলিন মুনরো আরো চড়াও হন শ্রীলঙ্কার বোলারদের ওপর। মাত্র ১৪ বলে ৭টি ছক্কা ও ১ চারে তিনি খেলেন অপরাজিত ৫০ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস। নিউজিল্যান্ডের যখন জয়ের জন্য দরকার ২ রান, মুনরো তখন ১৩ বলে ৪৪ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে। লঙ্কান পেসার দুসমন্ত চামিরাকে ডিপ মিডউইকেটের ওপর দিয়ে আছড়ে ফেলে মুনরো ফিফটি পূর্ণ করেন মাত্র ১৪ বলে, যা আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয় দ্রুততম ফিফটির রেকর্ডও। আগে যেটা ছিল ১৭ বলের।
অবশ্য ১৭ বলে ফিফটি আছে তিনজনের- আয়ারল্যান্ডের পল স্টারলিং, নেদারল্যান্ডসের স্টিফেন মাইবার্গ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইলের। আর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতের যুবরাজ সিংয়ের ১২ বলের ফিফটিটা এখনো টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেরই দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড।
রোববার অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে ঝড় তুলেছিলেন শ্রীলঙ্কার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসও। তার ৪৯ বলে ৭ চার ও ৪ ছক্কায় করা অপরাজিত ৮১ রানের সুবাদেই ৮ উইকেটে ১৪২ রান করেছিল শ্রীলঙ্কা। বাকি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তিলকারত্নে দিলশান (২৮) ছাড়া আর কেউই দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেনেনি! শেষ পর্যন্ত গাপটিল ও মুনরোর তাণ্ডবে বৃথা গেল ম্যাথুসের ঝোড়ো ইনিংসটি। কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনও ২১ বলে করেছেন অপরাজিত ৩২ রান।
এই জয়ে টেস্ট ও ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজটাও জিতে নিল নিউজিল্যান্ড। আর শ্রীলঙ্কা দুই ম্যাচ সিরিজের দুটিতেই হেরে হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় ডুবল।

মুনরোর ছক্কার রেকর্ড

monorar
রেকর্ড গড়ার পর কলিন মুনরোকে মাইক হেসনের অভিনন্দন

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয় দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড গড়েছেন কলিন মুনরো। ১৪ বলে ফিফটি ছোঁয়ার পথে আরেকটি অনন্য রেকর্ডও গড়েছেন নিউজিল্যান্ডের এই ব্যাটসম্যান।
রোববার অকল্যান্ডে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৪ বলে অপরাজিত ৫০ রান করতে মুনরো চার মেরেছেন একটি আর ছক্কা হাঁকিয়েছেন ৭টি। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ৫০ বা এর কম রানের ইনিংসে কোনো ব্যাটসম্যানদের এটাই সবচেয়ে বেশি ছক্কা মারার রেকর্ড।
আগের সর্বোচ্চ ছিল ৬টি। ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৪৫ রান করার পথে ৬টি ছক্কা মেরেছিলেন নেদারল্যান্ডের হয়ে খেলা টম কুপার।
অকল্যান্ডে মুনরোর পাশাপাশি ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়েছেন মার্টিন গাপটিলও। ১৯ বলে ফিফটি ছুঁয়ে গাপটিল ২৫ বলে করেন ৬৩ রান। আর এই দুজনের তাণ্ডবে শ্রীলঙ্কার করা ১৪২ রান ১০ ওভারেই টপকে যায় নিউজিল্যান্ড, জেতে ৯ উইকেটে।
আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে এই প্রথম একই ম্যাচে দুই ব্যাটসম্যান ফিফটি ছুঁলেন ২০-এর কম বল খেলে। এর কাছাকাছি ২০১০ সালে ভারত-শ্রীলঙ্কা ম্যাচে কুমার সাঙ্গাকারা ও গৌতম গম্ভীর যথাক্রমে ২১ ও ১৯ বলে ফিফটি করেছিলেন।
অবশ্য ক্লাব টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে মার্কাস টেসকোথিক ১৩ বলে অর্ধশতক পূর্ণ করেছিলেন। এছাড়াও ইমরান নাজির, বারফি, বার্নেট, পোলার্ড ১৪ বলে অর্ধশতক পূর্ণ করেছিলেন।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s