DMP Asadujjamanএবার মাগরিবের আগেই একুশে বইমেলা ত্যাগ করার এবং সূর্যাস্তের পর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে না ঢুকতে সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ। রবিবার সকালে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া এ কথা জানান।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, যদি কোনো লেখক, প্রকাশক বা ব্লগার তাদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত থাকেন তাহলে তারা বইমেলার ভেতরের পুলিশ কন্ট্রোল রুমে নিরাপত্তা চাইতে পারেন। পুলিশের পক্ষ থেকে তাদের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা দেয়া হবে।
আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডসহ সকল প্রকার পূর্ব অভিজ্ঞতা ও হুমকিকে মাথায় রেখেই বইমেলায় এবার নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডের সময় বইমেলায় লাইটিংয়ের ঘাটতি ছিল, তবে এবার পর্যাপ্ত লাইটিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়াও ফায়ার টেন্ডার ও লাইটিং ইউনিট মোতায়েন করা হবে।
বইমেলার নিরাপত্তার বিষয়ে কমিশনার আরো বলেন, এবারের বইমেলায় পৃথক প্রবেশ এবং বাহিরপথ রাখা হয়েছে। প্রতিটি প্রবেশ পথে আর্চওয়ে গেট থাকবে। মেলায় আগত সবার ব্যাগ তল্লাশি করা হবে।
বইমেলার নিরাপত্তায় এবার ২ শতাধিক সিসি ক্যামেরা, বোম ডিস্পোজাল ইউনিট, ডগ স্কোয়াড, ৯টি ওয়াচ টাওয়ার, ফুট প্যাট্রল ও কন্ট্রোল রুমের ব্যবস্থা করা হয়েছে। মেলার বিদেশি স্টল ও অতিথিদের জন্য বিশেষ নিরাপত্তা নেয়া হয়েছে। এ সময় জননিরাপত্তা ও পুলিশের দায়িত্ব পালনে নগরবাসীর সহায়তা চেয়েছেন ডিএমপি কমিশনার।
সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত কমিশনার মারুফ হাসান প্রমুখ।