Gemini_Arabians MCLশেষ হয়ে গেলো জাতীয় দল থেকে অবসর নেওয়া কিংবদন্তি ক্রিকেটারদের নিয়ে গড়া মাস্টার্স চ্যাম্পিয়ন্স লিগের জমজমাট আসর। জেমিনি অ্যারাবিয়ান্সের হাতে শিরোপা উঠার মাধ্যমে পর্দা নামে এই টুর্নামেন্টের।
দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ফাইনালে বিরেন্দর শেওয়াগ, কুমার সাঙ্গাকারা, মুত্তিয়া মুরালিধরন, কাইল মিলস, জাস্টিন কেম্প, ব্রাড হজ, সাকলাইন মুস্তাকদের নিয়ে গড়া জেমিনি ১৬ রানে হারিয়েছে ব্রেন্ডন টেইলর, ব্রায়ান লারা, স্কট স্টাইরিস, জোহান বোথা, হিথ স্ট্রিকদের লিও লায়ন্সকে।
প্রথমবারের মতো আয়োজিত ছয় দলের এই টুর্নামেন্ট হয় সংযুক্ত আরব আমিরাতে। দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শনিবার রাতে ফাইনালে লিও লায়ন্সকে ১৬ রানে হারিয়েছে তারা। টস জিতে লায়ন্স প্রতিপক্ষকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানায়। আগে ব্যাট করে শেওয়াগের জেমিনি নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৩০ রান সংগ্রহ করে। জবাবে, ব্যাটিংয়ে নেমে ১৯.৩ ওভারে অলআউট হওয়ার আগে লারার লায়ন্স ১১৪ রান তোলে।
ব্যাটিংয়ে নেমে ৯ রান করে আউট হন জেমিনির ওপেনার শেওয়াগ। আরেক ওপেনার রিচার্ড লেভি করেন ২১ রান। ২৬ বলে ৩০ রান করে বিদায় নেন লঙ্কান গ্রেট সাঙ্গাকারা। হজের ব্যাট থেকে আসে ১৪ রান। আর জাস্টিন কেম্প ২৯ বলে ৩২ রান করে অপরাজিত থাকেন।
লায়ন্সের হয়ে দুটি করে উইকেট নেন ফিদেল অ্যাডওয়ার্ডস ও স্কট স্টাইরিস। একটি করে উইকেট পান রবিন পিটারসেন, কাইল জারভিস ও জোহান বোথা।
১৩১ রানের টার্গেটে লায়ন্সের হয়ে ব্যাটিং শুরু করেন হামিশ মার্শাল ও নেইল কার্টার। ৪০ বলে ৪৬ রান করেন মার্শাল আর কার্টারের ব্যাট থেকে কোনো রানই আসেনি। তিন নম্বরে নেমে টেইলর ১, চারে নেমে ফ্রাঙ্কলিন ০ রানে বিদায় নিলেও দলপতি লারা খেলেন ২৮ রানের ইনিংস।
বাকিরা বড় সংগ্রহ করতে না পারলে ১১৪ রানেই গুটিয়ে যায় লায়ন্সের ব্যাটিং লাইনআপ।
জেমিনির হয়ে মিলস দুটি উইকেট নেন। একটি করে উইকেট পান গ্রাহাম অনিয়ন্স, মুরালিধরন আর সাকলাইন মুস্তাক। তবে, বল হাতে দারুণ পারফর্ম করেন নাভিদ উল হাসান। ৪ ওভারে মাত্র ৯ রান খরচ করে তুলে নেন লায়ন্সের চার ব্যাটসম্যানকে।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ হন নাভিদ উল হাসান আর সিরিজ সেরা নির্বাচিত হন কুমার সাঙ্গাকারা।