mahathir1456755250আধুনিক মালয়েশিয়ার রূপকার মালয়েশিয়ার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মাহাথির বিন মোহাম্মদ ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের বিরোধিতা করে দল ত্যাগ করছেন। মাহাথিরের মতে, নাজিব দুর্নীতিগ্রস্ত। এই অবস্থায় একই দলে নাজিবের সঙ্গে থাকা মানে তার দুর্নীতিকে সমর্থন করা। ফলে তিনি পদ ত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
বিবিসি অনলাইনের এক খবরে সোমবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।
ইউনাইটেড মালয়স ন্যাশনাল অর্গানাইজেশন (ইউএমএনও) থেকে নির্বাচন করে প্রধানমন্ত্রী হন নাজিব রাজাক। একই দল থেকে প্রধানমন্ত্রী ছিলেন মাহাথির। কিন্তু এখনো তিনি এই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। মাহাথিরের ভাষ্য, ইউএমএনও-এর সঙ্গে থাকা তার জন্য বিব্রতকর। কারণ তাতে মনে হচ্ছে, তিনি নাজিবের দুর্নীতিকে সমর্থন করছেন।
মালয়েশিয়ায় নাজিবের চরম সমালোচক হয়ে উঠেছেন মাহাথির। প্রধানমন্ত্রী নাজিবের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী। দাপ্তরিকভাবেও তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।
রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে ৪৭৯ মিলিয়ন ডলার ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্টে সরিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে। জানুয়ারি মাসে দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যলয় থেকে ঘোষণা করা হয়, সৌদির রাজপরিবার থেকে ব্যক্তিগত কাজে নাজিবকে ওই অর্থ দেওয়া হয়।
নাজিবের বিরুদ্ধে আনা অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আগে যে অ্যাটর্নি জেনারেল খতিয়ে দেখছিলেন, তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়। নতুন অ্যাটর্নি জেনারেলের অভিযোগে তাকে নির্দোষ বলা হয়।
নাজিবের অর্থ আত্মাসাতের বিষয়ে খোলামেলা সমালোচনা করেছেন মাহাথির। বেশ কয়েক বার নাজিবের প্রতি পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। কিন্তু নাজিব রাজাক পদত্যাগ করেননি।
নাজিবের দুর্নীতিকে ‘না’ বলে শেষ পর্যন্ত নিজেই দল থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। সোমবার কুয়ালালামপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই ঘোষণা দেন।
মাহাথির মোহাম্মদ মালয়েশিয়ার সবেচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা প্রধানমন্ত্রী। ১৯৮১ সাল থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত একটানা দেশ শাসন করেছেন তিনি। মালয়েশীয়দের মধ্যে এমন কি দলের মধ্যেও তার গ্রহণযোগ্য এখনো কম নয়। কিন্তু ক্ষমতা যেহেতু ক্ষমতাসীনদের হাতেই থাকে, সেহেতু মাহাথির সে অর্থে আর প্রভাবশালী নন। ফলে তার দল ত্যাগের ঘোষণায় নাজিব যে খুব বিপদে পড়বে- এমনটি হয়তো হবে না।
এদিকে জানুয়ারি মাসে কেদাহ প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন মাহাথিরের ছেলে মুখরিজ মাহাথির। তবে মুখরিজের দাবি, তাকে উৎখাত করা হয়েছে। এই অবস্থায় বাবা ও ছেলে উভয় নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন।