চলে গেলেন ইমেইল উদ্ভাবক রে টমলিনসন


Rakheon (email fother)ইলেকট্রনিক মেইলিং সিস্টেম বা ইমেইলের উদ্ভাবক রে টমলিনসন আর নেই। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শনিবার যুক্তরাষ্ট্রে নিজের বাড়িতে তার মৃত্যু হয় বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়। ইন্টারনেট জগতের কিংবদন্তী এই কম্পিউটার প্রকৌশলীর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর।
টমলিনসন ১৯৭১ সালে সর্বপ্রথম ইলেকট্রনিক মেসেজিং সিস্টেমের ধারণা নিয়ে আসেন, যা দিয়ে কম্পিউটারের একটি নেটওয়ার্ক থেকে অন্য নেটওয়ার্কে বার্তা পাঠানো সম্ভব হয়। বর্তমান বিশ্বে তথ্য আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে ইমেইলই প্রধান মাধ্যম। আর সব ধরনের ইমেইলে ডোমেইন ঠিকানার আগে যে @  প্রতীক ব্যবহার করা হচ্ছে তার প্রচলনও তিনিই শুরু করেন।
বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বোস্টনের গবেষণা প্রতিষ্ঠান বোল্ট, বেরানেক অ্যান্ড নিউম্যানে প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করার সময় টমলিনসন তার প্রথম ই-মেইলটি পাঠান।
অবশ্য ওই বার্তায় কী পাঠানো হয়েছিল তা আর পরে মনে করতে পারেননি এই গবেষক।
বোস্টনের ওই প্রতিষ্ঠানটি পরে ‘অর্পানেট’ নাম নেয়। ইন্টারনেটের প্রাথমিক সংস্করণের অনেক গবেষণাই ওই প্রতিষ্ঠান থেকে হয়েছিল। তথ্য-প্রযুক্তি জগতে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ২০১২ সালে ইন্টারনেটের হল অব ফেমে টমলিনসনের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়।
তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে টুইট করেছে জিমেইল। ওই শোক বার্তায় ই-মেইল উদ্ভাবন ও @  প্রতীক প্রচলনের জন্য রে টমলিনসনকে ধন্যবাদও জানানো হয়।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s