Sharapovax-wide-communityবেশ কিছুদিন ফর্মহীনতায় ভুগছিলেন মারিয়া শারাপোভা। টেনিস মহলে গুঞ্জনটা ছড়িয়ে পড়ে, অবসর নিচ্ছেন রাশিয়ান এই তারকা। সোমবার আচমকা সংবাদ সম্মেলন ডাকেন শারাপোভা। সাংবাদিকরা ভেবেছিলেন, অবসরের ঘোষণাটাই বুঝি এবার দিয়ে দেন ২৮ বছর বয়সী এই রুশ ললনা।
কিন্তু  না, সবাইকে চমকে দিলেন শারাপোভা। সংবাদ সম্মেলনে নিষিদ্ধ ড্রাগ নেয়ার অকপট স্বীকারোক্তি করলেন তিনি। জানালেন, অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ড্রাগ পরীক্ষায় পাশ করতে পারেননি। আপাতত টেনিসের সব ধরনের কার্যক্রম থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে শারাপোভাকে। আগামী ১২ মার্চ এ ব্যাপারে নতুন করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে উইমেন’স টেনিস অ্যাসোসিয়েশন (ডব্লিউটিএ)।
ইচ্ছাকৃত নয়, ভুল করেই মেলডোনিয়াম নামক ড্রাগ নিতেন শারাপোভা। প্রায় দশ বছর ধরে শারীরিক অসুস্থতার জন্য এই ড্রাগ নিচ্ছিলেন। কিন্তু চলতি বছরের শুরুর দিকে এটা নিষিদ্ধ করা হয়। তাই অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ড্রাগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেননি রাশিয়ান টেনিস তারকা।
সংবাদ নম্মেলনে শারাপোভা বলেন, ‘বড় একটি ভুল করে ফেলেছি। আমার ভক্তদের হতাশ করেছি। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ড্রাগ পরীক্ষায় আমি ব্যর্থ হয়েছি। আমি নিষিদ্ধ ড্রাগ মেলডোনিয়াম নিয়েছিলাম। এর পুরো দায় আমি নিচ্ছি। না জেনেই এই ভুলে পা ফেলেছিলাম আমি।’
টেনিসকে বড় ভালোবাসেন শারাপোভা। বাল্যকাল থেকেই এই খেলার প্রতি তার আসক্তি ছিল। সেটা ধরা পড়ল রুশ ললনার কণ্ঠে, ‘মাত্র ৪ বছর থেকে টেনিস খেলছি। আমি এই খেলাকে খুব ভালোবাসি। আমি পরিস্থিতির শিকার। এভাবে আমি ক্যারিয়ারকে শেষ করতে চাই না। আমি আশা করছি, খেলা চালিয়ে যেতে আমাকে আরেকটি সুযোগ দেয়া হবে।’
ইতোমধ্যে শারাপোভার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে শুরু করেছে তার পৃষ্ঠপোষকেরা। ক্রীড়া সামগ্রী প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান নাইকিই যেমন জানিয়ে দেয়, তারা রুশ টেনিস তারকার সঙ্গে চুক্তিটা বাতিল করে দিয়েছে।
প্রসঙ্গত, গত ২৬ জানুয়ারি ড্রাগ পরীক্ষা দেন শারাপোভা। ওই দিন অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে সেরেনা উইলিয়ামসের কাছে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছিলেন রুশ সুন্দরী।