World-Health-Dayআজ ৭ এপ্রিল বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস। ১৯৪৫ সালের এ দিনে প্রষ্ঠিত হয় স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এ জন্মদিনের স্মরণে ১৯৫০ সাল থেকে প্রতিবছর দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের আধুনিকতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রোগবালাইও বাড়ছে। ঘটছে সংক্রামক-অসংক্রামক ব্যাধির বিস্তার। নতুন-পুরনো রোগ-ব্যাধি জনস্বাস্থ্যকে হুমকির সম্মুখীন করছে। এসবের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন ও গণসচেতনতাই হচ্ছে মূলত স্বাস্থ্য দিবসের মূল উদ্দেশ্য।
দিবসে এ বছরের নির্বাচিত বিষয় ‘মেইক হেলদি চয়েজেস এভরিডে : কিপ ডায়াবেটিস অ্যাট বে’-এর বাংলা ভাবার্থ হয় ‘সুশৃঙ্খল জীবন যাপন করুন : ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণে রাখুন।’
বিভিন্ন বছর বিভিন্ন প্রতিপাদ্য বিষয় বা স্লোগান নির্ধারণ হলেও এর মূল উদ্দেশ্য জনসাধারণের মধ্যে স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টি ও বৃদ্ধি। বাংলাদেশে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে প্রতিবছর এ দিবসটি পালিত হয়।
রোগমুক্ত সুস্থ জীবন প্রত্যেক মানুষেরই একটি মৌলিক অধিকার। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে এই অধিকার ভোগে সহায়তা করা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাংবিধানিক অঙ্গীকার। সেই লক্ষ্যে আঞ্চলিক ও আন্তর্জতিক পর্যায়ে বিভিন্ন সংক্রামক রোগ প্রতিরোধে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অর্জন করেছে উল্লেখযোগ্য সাফল্য।

Advertisements