cricket-dos-screenshot-coin-tossমাশরাফি বিন মুর্তজা খবরটি শুনেছেন কি না কে জানে। শুনলে নির্ঘাত মুখে হাসি ফুটেছে তাঁর মুখে। টানা নয়বার টস হারার অভিজ্ঞতা হয়েছে সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচগুলোতে। এর মাঝে অনেক ম্যাচেই টস বড় প্রভাবক ছিল ম্যাচের ফলাফলে। মাশরাফির মতো টস-দুর্ভাগাদের মুখে হাসি ফুটিয়ে তুলেছে ইংলিশ ক্রিকেট বোর্ড। ক্রিকেটের প্রায় দেড় শ বছরের খেলা শুরুর মহাগুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারটিই বাতিলের খাতায় ফেলে দিয়েছে তারা। এই বছরে পরীক্ষামূলকভাবে ইংল্যান্ডের ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে টস থাকবে না।
গতকাল টস ছাড়াই কাউন্টিতে পাঁচটি ম্যাচ শুরুও হয়ে গেছে। ​টসবিহীন ক্রিকেটের নিয়মটা হলো, অ্যাওয়ে দল টস ছাড়াই প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সুবিধা নিতে পারবে। অবশ্য অ্যাওয়ে দল যদি ব্যাটিং নিতে চায়, তখন টস হবে। গতকাল কাউন্টিতে শুরু পাঁচটি ম্যাচের চারটিতেই টসের দরকার হয়নি। অন্য ম্যাচে সফরকারী দলের অধিনায়ক টস জিতে ব্যাটিং নিয়েছেন প্রথমে।
সামান্য এক মুদ্রা নিক্ষেপে ম্যাচের ফল নির্ধারণের বিষয়টি নতুন নয়। ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে বিতর্কিত বিষয়ের একটি। স্বাগতিক দলের সুবিধামতো উইকেট বানানো এবং টস জিতে তার ফায়দা তোলার গল্প তো অনেকই বলা হয়েছে। সর্বশেষ ভারতে নিজেদের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে স্পিনের বিষ মাখানো উইকেট বানিয়েও এই সুবিধা নিয়েছিল। এর পক্ষে-বিপক্ষে অনেক কথা হওয়ার পর অবশেষে ক্রিকেটের জন্মভূমি ও আইনপ্রণেতা এমসিসির দেশ থেকেই শুরু হলো টস-বিহীন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট।
এই নিয়মে বোলিং বান্ধব উইকেট বানিয়ে টস জিতে বোলিং নিয়ে প্রতিপক্ষকে শুরুতেই ঘায়েল করার সুযোগ তাই কমে যাচ্ছে। কাউন্টিতে এই ব্যবস্থা চালু থাকবে আগামী এক বছরের জন্য। পরীক্ষা নিরীক্ষার পরই ঠিক হবে এই পদ্ধতি স্থায়ী রূপ নেবে কি না। তবে প্রথম দিনেই ৮০ ভাগ ব্যবহার বুঝিয়ে দিয়েছে, মুদ্রা নিক্ষেপের মূল্য কমিয়ে দেওয়া এই নতুন নিয়ম থাকতেই এসেছে। সূত্র: এএফপি।