barca-real.jpegমৌসুমের শেষ দিকে এসে স্প্যানিশ লা লিগার লড়াইটা বেশ জমে উঠেছে। খাদের কিনারে পড়া রিয়াল মাদ্রিদ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। অপরদিকে বুলেট গতিতে এগিয়ে যাওয়া বার্সেলোনা হোঁচট খাচ্ছে। শিরোপা প্রত্যাশী অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদও উঁকি মারছে। লিগ টেবিলে স্প্যানিশ তিন ‘ঘোড়া’র পয়েন্ট ব্যবধানটাও তো বেশি না, মাত্র ১। শীর্ষে থাকা বার্সার সংগ্রহ ৭৬। একই পয়েন্ট দ্বিতীয় স্থান অধিকারী অ্যাটলেটিকোরও। ৭৫ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলে রিয়ালের অবস্থান তৃতীয়। এতেই বোঝা যায়, মৌসুমের শেষ দিকে লা লিগার শিরোপা নিয়ে কতটা যুদ্ধ হবে। সেই যুদ্ধের খণ্ডিত অংশ মাঠে গড়াবে আজ। কেননা শিরোপা দৌড়ে থাকা তিন দলেরই ম্যাচ রয়েছে।
প্রথমে বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায় দেপার্তিভো লা করুনার আতিথ্য নেবে বার্সা। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে সুপার স্পোর্টস।
লা লিগার শিরোপা ধরে রাখতে জয়ের ধারায় ফিরতে মরিয়া বার্সেলোনা। অপেক্ষাকৃত দুর্বল প্রতিপক্ষ দেপোর্তিভো লা করুণার বিপক্ষে ম্যাচটিই এখন কাতালানদের জন্য বাঁচা-মরার ম্যাচের সমান। কোনো রকম হোঁচট খেলেই যে ছিটকে যেতে হবে!
মৌসুমের প্রথম সাক্ষাতে বার্সাকে ন্যু ক্যাম্পেই (২-২) রুখে দেয় দেপোর্তিভো। এবার নিজেদের মাঠে যে তারা ছেড়ে কথা বলবে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তার ওপর টানা চারটি লিগ ম্যাচে জয়হীন (শেষ তিনটিতে হার) কাতালানদের উপরই চাপটা বেশি থাকবে।
গত রোববার রাতে তুলনামূলক দুর্বল দল ভ্যালেন্সিয়ার কাছে ২-১ পরাজয় বরণ করেছে বার্সা। লিগ শিরোপা জয়ে এটা কাতালানদের জন্য বড় এক ধকলই বটে। এমন হারের পর স্বভাবতই হতাশা বিরাজ করছে বার্সা শিবিরে। সেই হতাশা দূর করতে আজ দেপার্তিভোর বিপক্ষে জয় চান কোচ লুইস এনরিক, ‘প্রথমত ছেলেদের আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে দেপার্তিভোকে হারাতে চাই। তবে প্রতিপক্ষের মাঠে জয়টা খুব সহজ হবে না। আশা করছি, ভুলগুলো শুধরে নিয়ে আমরা ঘুরে দাঁড়াবই।’
লিগ শিরোপা ধরে রাখতে বার্সাকে সামনের সবকটি ম্যাচেই জিততে হবে, যদি না রিয়াল কিংবা অ্যাতলেতিকো কোনো ম্যাচ হেরে না যায়।
২০০৩ সালের পর এবার প্রথম টানা তিনটি লিগ ম্যাচে হারের পুনরাবৃত্তি ঘটাল বার্সা। তারও আগে ১৯৯৯ সালে লা লিগায় টানা চার ম্যাচে হারের লজ্জায় ডুবেছিল স্প্যানিশ জায়ান্টরা। এবার লুইস এনরিকের বার্সাকে সেরকম বার্জে রেকর্ড-ই চোখ রাঙানি দিচ্ছে!
৪৫ মিনিটের ব্যবধানে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ মুখোমুখি হবে অ্যাটলেটিকো বিলবাওয়ের। ম্যাচটি দেখাবে সনি ইএসপিএন এইচডি।
রাত ২টায় সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে ভিয়া রিয়ালকে স্বাগত জানাবে রিয়াল মাদ্রিদ। ম্যাচটি সম্প্রচার করবে সনি ইএসপিএন।
শনিবার রাতে গেটাফের মাঠে ৫-১ গোলের সাবলিল জয় তুলে নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। এই জয়ে বার্সার ঘারে নিঃশ্বাস ফেলতে শুরু করেছে রিয়াল। সেই সঙ্গে লা লিগার শিরোপার স্বপ্নও দেখতে শুরু করেছেন জিনেদিন জিদান। যদিও তিনি এগিয়ে রাখছেন বার্সা-অ্যাটলেটিকোকে। ফরাসি কিংবদন্তি বলেন, ‘আমি মনে করি, বার্সেলোনা ও অ্যাটলেটিকো সব ম্যাচ জিততে পারে। আমরা যদি সব ম্যাচ জিতেও যাই। তার পরও শিরোপার আশা করতে পারি না। কারণ এখনো এক পয়েন্টে এগিয়ে বার্সা। বার্সেলোনা লিগের বাকি ম্যাচগুলো জিতলে আমরা চ্যাম্পিয়ন হতে পারব না।’
এদিকে রিয়াল-বার্সাকে নিয়ে ভাবেন না অ্যাটলেটিকো বস দিয়েগো সিমিওনে। নিজেদের খেলা নিয়েই ভাবনায় তিনি, ‘আমি আসলে ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবি না। কিন্তু আমি নিশ্চিত যে আমরা নিজেদের ওপর আস্থা রাখতে পারি। আমি এটা ভাবছি, আমরা লক্ষ্যে পৌঁছার পথেই রয়েছি!’

বার্সা-আতলেতিকোকেই এগিয়ে রাখছেন জিদান

রিয়াল মাদ্রিদের এবারের লা লিগা ও উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের সম্ভাবনা আছে বলে বিশ্বাস কোচ জিনেদিন জিদানের। তবে এখন পর্যন্ত বার্সেলোনা ও আতলেতিকো মাদ্রিদকেই এগিয়ে রাখছেন ফরাসি এই কোচ।
গত মাসের এই সময়ে লিগে শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার চেয়ে ১২ পয়েন্টে পিছিয়ে থাকায় সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ের অনেকেই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বপ্ন ছেড়েই দিয়েছিলেন। কিন্তু বার্সেলোনা টানা তিন ম্যাচ হেরে যাওয়ায় রিয়ালের ফিকে হয়ে যাওয়ার স্বপ্নটা আবার জেগেছে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের ১ পয়েন্টের ব্যবধানে উঠে এসেছে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোরা।
৩৩ রাউন্ড শেষে বার্সেলোনা ও আতলেতিকোর পয়েন্ট সমান ৭৬ হলেও মুখোমুখি লড়াইয়ে পিছিয়ে দিয়েগো সিমেওনের দল। রিয়ালের পয়েন্ট ৭৫।
লিগে টানা সাত ম্যাচ জিতে শিরোপা জয়ের ব্যাপারেও আশাবাদী হয়ে উঠেছেন জিদান। কিন্তু কঠিন বাস্তবতা ভুলছেন না তিনি। কারণ চ্যাম্পিয়ন হতে তাদের শুধু জিতলেই হবে না, হোঁচট খেতে হবে উপরের দুই দলের।
আগামী বুধবার লিগের ৩৪তম রাউন্ডে চতুর্থ স্থানে থাকা ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে মাঠে নামবে রিয়াল। মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে জিদান নিজেদের সম্ভাবনা প্রসঙ্গে বলেন, “আমার মতে, বার্সেলোনা ও আতলেতিকো সব ম্যাচ জিততে পারে। আমরা যদি সব ম্যাচ জিতি, কিন্তু বার্সেলোনাও তাই করে তাহলে আমরা চ্যাম্পিয়ন হব না।”
শুধু লিগে নয়, উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও শিরোপা জয়ের সম্ভাবনা আছে রিয়ালের। ইউরোপ সেরার প্রতিযোগিতায় সেমি-ফাইনালেও উঠেছে তারা। এ দুই প্রতিযোগিতাতেই শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যেতে চান জিদান।
“আমরা দুটি শিরোপা জিততেই সক্ষম।… আমরা শেষ মিনিট পর্যন্ত লড়াই করে যাব এবং আমি নিশ্চিত করছি, শেষ পর্যন্ত আমরা কাজ করে যাব।”