mamata-oath-signদ্বিতীয় মেয়াদে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজপথেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী শপথ নিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার কোলকাতার রেড রোডে তৃণমূল সরকারের এ শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান পশ্চিমবঙ্গের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় শপথ আয়োজন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।
গত সপ্তাহে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের ঘোষিত ফলাফলে বিপুল জয় পায় তৃণমূল কংগ্রেস।এক সময় কোলকাতার যে রাস্তায় যুদ্ধবিমান নেমেছে সেই রেড রোড মমতার বিশাল বিশাল কাট-আউটে সাজানো হয়েছিল। রাজ্যের সচিবালয় ও হাইকোর্টের মতো গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোর সঙ্গে সংযোগ রক্ষাকারী রেড রোড তৃণমূলের বিজয় উৎসব পালনের জন্য নিরাপত্তা চাদরে ঘিরে ফেলা হয়েছিল।
মূখ্যমন্ত্রী মমতার পাশাপাশি রাজ্য তৃণমূল সরকারের ৪১ জন মন্ত্রীও একই মঞ্চে শপথ গ্রহণ করেছেন। ফুল দিয়ে সাজানো বিশাল এক মঞ্চে এই শপথ অনুষ্ঠান হয়।
এই অনুষ্ঠান দেখার সুযোগ দিতে ২০ হাজার মানুষকে বিনা নিমন্ত্রণে অনুমতিপত্র ছাড়াই অনুষ্ঠান স্থলে প্রবেশের সুযোগ দেওয়া হয়।
শুক্রবার রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মমতার দ্বিতীয়বারের মতো শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিনিধিরা তো বটেই, আন্তর্জাতিক প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছলেন। ভুটানের প্রধানমন্ত্রী এবং বাংলাদেশের শিল্পমন্ত্রী হাজির কলকাতায়।
বেলা ১২টা ১০ নাগাদ কালীঘাটের বাড়ি থেকে বেরিয়ে রেড রোডের উদ্দেশে রওনা দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রতিবেশীরা পুষ্পবৃষ্টি করে তাঁকে অভ্যর্থনা জানান। দেওয়া হয় শঙ্খ এবং উলুধ্বনিও। ১২টা ৪৫ মিনিটে শপথ নেন মমতা। এর আগে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশের শিল্পমন্ত্রী, লালু প্রসাদ, নীতীশ কুমার, অরবিন্দ কেজরিওয়াল, অখিলেশ যাদব ,অরুণ জেটলির মতো বাঘাবাঘা কেন্দ্রীয় নেতারা অনুষ্ঠান মঞ্চে উপস্থিত। এছাড়া ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, সপাল সিংহ, শ্রীকান্ত মোহতা, রাজ চক্রবর্তী, সোহম, জুন মাল্য, অরিন্দম শীল, বিরসা দাশগুপ্ত, রুদ্রনীল, দীপঙ্কর দে, কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়সহ গোটা টলিউড হাজির ছিলো শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে।
১৯ হাজার দর্শকের জন্য বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে রেড রোডে। এছাড়া বিশেষ অতিথিদের পিছনে আরও ৪০০০ আসন অন্যান্য অতিথিদের জন্য রাখা হয়েছে। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে রেড রোডে ত্রি-স্তরীয় নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়।
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শপথ নেওয়ার পরপরই তার ৪২ সদস্যের মন্ত্রিসভা শপথ বাক্য পাঠ করেন। মন্ত্রিসভায় পূর্ণমন্ত্রী হচ্ছেন ২৯ জন। মন্ত্রীদের শপথের পরপর জাতীয় সঙ্গীতের মধ্যে দিয়ে শেষ হয় অনুষ্ঠান। বিকেল ৪টা ৩০ মিনিটে নবান্নে শুরু হবে নবগঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠক। সেই বৈঠক থেকেই মন্ত্রীদের মধ্যে দফতর বণ্টন করবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
শুক্রবার সকালে করা এক ট্যুইটে মমতা বাংলার জনগণের ‘নতুন শুরুর’ বিষয়ে কথা বলেন এবং তার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার জন্য মন্ত্রীদের ও মুখ্যমন্ত্রীদের ধন্যবাদ জানান।
কংগ্রেস ও বামপন্থিরা মমতার শপথ অনুষ্ঠান বয়কট করে।