IGP Shahidul Haqueদেশব্যাপী জঙ্গিবিরোধী সাঁড়াশি অভিযান নিয়ে গ্রেফতার বাণিজ্যের আশংকা করে গণমাধ্যমে বক্তব্য দেয়ায় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড.মিজানুর রহমানের সমালোচনা করেছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হক।
আজ রোববার চট্টগ্রামে আয়োজিত এক সুধী সমাবেশে আইজিপি বলেন, আমাদের মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান, জিজ্ঞেস করলেই উনি হুট করে কথা বলে ফেলেন।  উনি তথ্য না নিয়ে, না বুঝে, না শুনে হুট করে কমেন্ট (মন্তব্য) একটা করে ফেলেন।
‘আজকের পত্রিকায় উনার কমেন্ট দেখেন, পুলিশ নাকি গ্রেফতার বাণিজ্য করছে।  পুলিশ গতকাল ৩ হাজার ১১৫ জনকে গ্রেফতার করেছে।  এদের কতজন মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি, কতজন জঙ্গি, কতজন মাদক ব্যবসায়ী এই তথ্য উনি নেননি।  সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়া একটা লোককেও গ্রেফতার করা হয়নি।  পরিস্কার নির্দেশ দেয়া আছে, কোন নির্দোষ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা যাবেনা।  আমি বারবার বলেছি, কোন নিরপরাধ মানুষকে হয়রানি করলে আমাকে তথ্য দেন, আমি আমার অফিসারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। ’
‘উনি এখন বলছেন গ্রেফতার বাণিজ্য।  পুলিশ কাজ করলেই যদি সমালোচনা করে ফেলেন তাহলে তো পুলিশ কাজ করতে পারবেনা।  পুলিশ তো জনগণের জন্য কাজ করছে।  কাজ করলে সামান্য ত্রুটি থাকতেই পারে, কিন্তু ঢালাও যদি অভিযোগ করেন পুলিশ তো কাজ করার উৎসাহ পাবেনা। ’ বলেন আইজিপি।
সমাবেশে গণমাধ্যমেরও সমালোচনা করে আইজি একেএম শহীদুল হক।
তিনি বলেন, আমরা দেশব্যাপী অভিযান চালাচ্ছি।  ১০ জুন থেকে সাঁড়াশি অভিযান শুরু হয়েছে।  ভাল কাজ হচ্ছে।  কিছু কিছু পত্রপত্রিকা এটাকে নেতিবাচকভাবে দেখছে।  পুলিশ কাজ করলেও সমস্যা, না করলেও সমস্যা।  পুলিশের কাজ কোনটাই তাদের ভাল লাগেনা।
‘নীরবে কাজ করলে বলে পুলিশ কোন কাজই করেনা।  পুলিশ ব্যর্থ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যর্থতা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোন জবাবদিহিতা নাই। পুলিশ যখন সরবে কাজ করে তখন বলে ঢাকঢোল পিটিয়ে কাজ করছে।  এগুলো আসল কাজ করার জন্য করছে না। তাহলে আমরা যাব কোথায় ?’
আইজিপি বলেন, আমার কথা হল, পুলিশ তো বিভিন্ন কৌশলে কাজ করবে।  প্রকাশ্যে করবে, গোপনে করবে, নানাভাবে করবে।  এগুলো পুলিশের কর্মকৌশল।  যদি কোন নিরাপরাধ লোক, মামলার আসামি না এমন লোক কিংবা সন্দেহভাজন নন এমন লোক, তাকে যদি গ্রেফতার করা হয় তবে আমাকে জানান।  আমি অবশ্যই ব্যবস্থা নেব।
নগরীর দামপাড়া পুলিশ লাইনে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন শ্যূটিং ক্লাবে আয়োজিত সুধী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সিএমপি কমিশনার মো.ইকবাল বাহার।
এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রামের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার রহুল আমিন, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো.শফিকুল ইসলাম, সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, প্যানেল মেয়র জোবাইদা নার্গিস খান, বিজিএমইএর প্রথম সহ সভাপতি মঈনউদ্দিন আহমেদ মিন্টু, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি কলিম সরওয়ার, স্বাচিপ নেতা ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান।