mrpashan.jpgএকজন পাষাণ হৃদয়ের মানুষ হতে চান অনেক কিছু। কখনও প্রেমিক, কখনওবা নেতা। এই চরিত্রটি লিখেছিলেন প্রয়াত ফারুক হোসেন। তার রচনায় পাষাণ মানুষকে নিয়ে তৈরি হয়েছে তিনটি নাটক। সবই পরিচালনা করেছেন হিমেল আশরাফ। তার প্রতি শ্রদ্ধা রেখে তৈরি হলো এ সিরিজের চতুর্থ কিস্তি। এবারেরটির নাম ‘মি. পাষাণ ইজ ব্যাক’। যথারীতি পাষাণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন সালাহউদ্দিন লাভলু।
‘মিস্টার পাষাণ’। এটা তার কাগুজে নাম নয়, উপাধি। বিভৎস কায়দায় খুন করার কারণেই তার এ উপাধি। তার নাম কী? থাকে কোথায়? দেখতে কেমন? কিছুই জানে না পুলিশ। তার সম্পর্কে পুলিশের এই অজ্ঞতার অন্যতম কারণ হচ্ছে, পাষাণ একেকটা খুন করে দীর্ঘ বিরতীতে। অনেক সময় নিয়ে, গড় হিসাব বলতে গেলে বলা যায়, পাষাণের নামে খুনের অভিযোগ থানায় লিখিত হয় প্রায় ৩ বছর পর পর।
পাষাণ মানসিকভাবে অপরিণত ও নিয়ন্ত্রনহীন এক মানুষ। পাষাণের যেমন রয়েছে সাধারণ মানুষের তুলনায় অনেকগুণ বেশী অবেগ। তেমনি রয়েছে সাধারণ মানুষের তুলনায় অনেক বেশী নির্মমতা। যেমন রয়েছে অস্বাভাবিক পর্যায়ের ধৈর্য্য, তেমনি রয়েছে অসম্ভব একরোখা ভাব। সে যা বুঝবে, বলবে তাই ঠিক। এমনই এক চরিত্রে ছোটপর্দায় নিয়মিতই অভিনয় করছেন জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী-নির্মাতা সালাউদ্দিন লাভলু।
‘মিস্টার পাষাণ এখন নেতা হইতে চায়’, ‘মিস্টার পাষাণ’ ও ‘মিস্টার পাষাণ ইন লাভ’ শিরোনামে তিনটি নাটকে অনবদ্য অভিনয় করে প্রশংসা কুড়িয়েছেন তিনি। তারই ধারাবাহিকতায় এবার ঈদেও তিনি আসছেন পাষাণ রূপে। এবারের এপিসোডের নাম ‘মিস্টার পাষাণ ইজ ব্যাক’।
এর আগের নাটকগুলোকে তার বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন নুসরাত ইমরোজ তিশা, অপর্ণা ঘোষ। এবার থাকছেন সাবিলা নূর। আগের তিনটি নাটকই লিখেছেন অকাল প্রয়াত ফারুক হোসেন। এবারের কিস্তিটি লিখেছেন মেজবাহ উদ্দিন সুমন। বরাবরের মতোই পরিচালনা করেছেন হিমেল আশরাফ।
হিমেল আশরাফ জানালেন, আগের কিস্তিগুলোতে দর্শকদের কাছ থেকে পাওয়া ভালোবাসার ফলেই  আরেক কিস্তি শুরু করছি। লাভলু ভাই বরাবরের মতোই অনবদ্য অভিনয় করেছে। সঙ্গে সাবিলাও ভালো করেছেন। আশা করি দর্শকদেরও ভালো লাগবে।’
নাটকটি আসছে ঈদে প্রচার হবে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে।