smartphone-wedding.jpgপৃথিবীতে কত রকম বিয়ের ঘটনাই তো ঘটে থাকে। এবার স্মার্টফোন বিয়ে করলেন অ্যারন কের্ভেনাক নামের এক ব্যক্তি। ঘটা করে বিয়ের কাজটি সেরেছেন তিনি। এমনকি বিয়ের সময় স্মার্টফোনকে আংটিও পরিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাসে এ ঘটনা ঘটেছে।
ইন্টারনেট সিকিউরিটি ক্যাসপারস্কি একটি সমীক্ষায় জানিয়েছে, এক চতুর্থাংশ মানুষ তাদের পিতামাতার চেয়ে স্মার্টফোনকে বেশি গুরুত্ব দেয়। ঘুমুতে যাওয়ার আগে এবং ঘুম থেকে উঠে আমরা স্মার্টফোন ব্যবহার করি। এছাড়া দিন-রাত চব্বিশ ঘণ্টায় আমরা অনেক কাজেই স্মার্টফোন ব্যবহার করে থাকি।
অ্যারন কের্ভেনাক বলেন, ‘সম্পর্ক বলতে আমি বুঝি যার কাছে আমরা সান্ত্বনা এবং শান্তি খুঁজি, যে আমাদের ঘুম পারাবে এবং মানসিক চাপ দূর করবে এমন কেউ। সেই দিক থেকে স্মার্টফোনের সঙ্গে আমার অনেকদিনের সম্পর্ক। এ কারণেই আমি স্মার্টফোনের সঙ্গে বিয়ে করেছি।’
কিন্তু স্মার্টফোনের সঙ্গে বিয়ের বিষয়টি স্বাভাবিক বিষয় নয়। তাই তার প্রিয় স্মার্টফোনকে বিয়ে করতে কের্ভেনাক এমন একটি স্থানকে বেছে নিয়েছেন যেখানে উদ্ভট সব বিয়ে হয়ে থাকে। আর তা হলো লাস ভেগাস। তিনি লাস ভেগাসে অবস্থিত ‘দ্য লিটল লাস ভেগাস চ্যাপেল’-এর মালিকের সঙ্গে তার বিয়ে নিয়ে কথা বলেন এবং তারা এতে রাজি হয়। শুধু রাজি হয়নি এ বিষয়টি নিয়ে তারা বেশ উচ্ছ্বাসও প্রকাশ করেন।
গত ২০ মে, অ্যারন তার প্রিয় স্মার্টফোন নিয়ে দ্য লিটল লাস ভেগাস চ্যাপেল-এ পৌঁছায়। এবং বিয়ে করে। ছোট পরিসরে বিয়ে হলেও অন্যান্য সাধারণ বিয়ের মতোই ছিল কের্ভেনাকের মানসিক অবস্থা। বিয়ের সময় কথা বলতে গিয়ে কিছুটা স্নায়ুচাপে ভুগছিলেন তিনি।
কের্ভেনাক বলেন, ‘স্মার্টফোনের সঙ্গে বিয়ে এখনো আইনত বৈধ নয় তবে ফোন আমাদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ এই বিয়ে তার একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। আশা করছি, অন্যান্যরাও এখন তাদের সম্পর্ক নিয়ে নিজেদের প্রশ্ন করবেন।’

ভিডিও…………