sadhubari (india).jpgভারতের পশ্চিমবঙ্গের বসিরহাটের নতুন বাজার এলাকার সাধুবাড়িতে কয়েক বছরে তিনজনের অপমৃত্যু হয়েছে। সপ্তাহ খানেক ধরে ওই বাড়িতে নানা রকমের আওয়াজ শোনায় বেজায় আতঙ্কে রয়েছেন বাড়ির লোকজন। ভুতুড়ে শব্দের রহস্য ভেদ করতে সোমবার রাতে পুলিশ ওই বাড়িতে গিয়ে তল্লাশি চালায়। তবে যতক্ষণ পুলিশ ছিল ভূত দূরের কথা ‘ভূতের শব্দও’ মেলেনি।
সোমবার রাত ১২টায় কয়েকটি মোটরবাইক ও গাড়ি করে ১২ জনের একটি দল নিয়ে বসিরহাটের আইসি দেবাশিস চক্রবর্তী সাধুবাড়িতে যান। টর্চ হাতে তিনি সোজা ঢুকে পড়েন বাড়ির ভেতর। তবে কোনো ‘ভূতের অস্তিত্ব’ পাওয়া যায়নি।
পুলিশ জানিয়েছে, ভূতটুত কিছু নয়। এসব মানুষের কাজ। তারা থাকাকালীন কিছুই হয়নি।
দেবাশিস  চক্রবর্তী বলেন, ‘যেখানে ভূতের উপদ্রবের কথা শোনা যায় সেখানে কোনো না কোনো অপরাধমূলক কাজ হয়। এখানেও তাই হচ্ছে। তদন্ত চলছে। খুব শিগগির সমাধান হবে।’
পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের টাকি শাখার সম্পাদক পার্থ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘এটি দুষ্কৃতীদের চক্রান্ত। আধুনিক যন্ত্রের সাহায্যে নানারকম শব্দ সৃষ্টি করা হচ্ছে। ভাড়াটে বা মালিক উচ্ছেদের চেষ্টা চালানো হচ্ছে।’
সোমবার রাতে শুধু সাধুবাড়ি নয়, তল্লাশি চালানো হয় পাশের নাথবাড়িতেও। সাধুবাড়ি ও নাথবাড়ির ছাদটি জোড়া লাগানো। তবে পুলিশের হাজার ডাকেও রাতে ঘুম ভাঙেনি নাথদের। পরে পুলিশ পাঁচিল বেয়ে উঠতে শুরু করলে ওই পরিবারের একজন এসে দরজা খুলে দেন। সারা পাড়া শব্দ ভূতের উপদ্রবের কথা জানলেও নাথবাড়ির ক্ষীরোদ নাথ এ বিষয়ে কিছু জানেন না বলে দাবি করেন।