mesbah.jpegক্যারিয়ারের দশম সেঞ্চুরি, তাই উদযাপনটা হতে হবে ভিন্ন কিছু। ৪২ বছর ৪৭তম দিন বয়সি মিসবাহ-উল-হক মনে হয় এমন কিছু ভেবেই ইংল্যান্ডের মাটিতে প্রথম টেস্ট খেলতে নেমেছিলেন। যদি ভিন্ন কিছু করার চিন্তা না করেই থাকেন তাহলে এমন কেনইবা করবেন!
জ্যাক হবস ছিলেন ক্রিকেটের সত্যিকারের ওয়াইন। বয়স যত বেড়েছে, ততই যেন গুণ বেড়েছে। টেস্ট ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বয়সে টেস্ট সেঞ্চুরির দুটি রেকর্ডই হবসের। একটি করেছিলেন ৪৫ বছর ২৩৯ দিন বয়সে। পরের বছর নিজের গড়া সেই রেকর্ড ভেঙে দিয়ে সেঞ্চুরি করেন ৪৬ বছর ৮২ দিন বয়সে। স্যার জ্যাকের ১৫ সেঞ্চুরির অর্ধেকেরই বেশি ৪০ পেরোনোর পরই! ৪১ বছর বয়স পার করেই করেছেন আটটি সেঞ্চুরি।
এখনকার ক্রিকেটে তা কল্পনাই করা কঠিন। শুধু এ সময়ের ক্রিকেট কেন, গত ৮২ বছরেই এত বয়সে আর কেউ সেঞ্চুরি করতে পারেননি! বয়স ৩৫-এর কোঠায় চলে এলেই তো অবসরের তোড়জোর শুরু হয়। সেখানে মিসবাহ যেন এ কালের হবস। ৪০ পেরিয়ে করেছেন পাঁচটি সেঞ্চুরি। বয়সের সীমাটাকে আর অল্প একটু বাড়ান। ৩৯ পেরিয়ে মিসবার সেঞ্চুরির সংখ্যা সাতটি! বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ধার যেভাবে বাড়ছে, কে জানে, হবসকে হয়তো পেরিয়েই যাবেন।
তা পেরোন আর না-ই পেরোন, এরই মধ্যে পাকিস্তানের অধিনায়ক এমন কিছু কীর্তি গড়েছেন, তাতেই চোখ কপালে ওঠার জোগাড়। গতকাল লর্ডসে তাঁর সেঞ্চুরিটি এসেছে ৪২ বছর ৪৭ দিন বয়সে। টেস্ট ক্রিকেটের আর কোনো অধিনায়ক এত বুড়ো বয়সে সেঞ্চুরি করেননি। ৪০ পেরিয়ে পাঁচ সেঞ্চুরির কীর্তিও নেই আর কোনো অধিনায়কের।
যারা টিভিতে সরাসরি দেখেছেন তারা নিশ্চিত বিনোদন পেয়েছেন। যারা দেখেননি তারা ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের অফিসিয়াল টুইটার পেইজে দেখে নিবেন।
ফিনের শর্ট বল থার্ড ম্যান অঞ্চলে পাঠিয়ে প্রান্ত বদল মিসবাহের। ৯৯ থেকে মিসবাহ পৌঁছে গেলেন ম্যাজিকাল ফিগার ১০০ তে। ক্রিকেটের তীর্থস্থান লর্ডসে সেঞ্চুরি, উদযাপন কিছুটা হলেও থাকবে সেটা অনুমিতই ছিল। কিন্তু ‘বুড়ো’ মিসবাহ কী করেন সেটা দেখার অপেক্ষায় ছিলেন অনেকেই। হতাশ করেননি পাকিস্তানের অধিনায়ক।
প্রান্ত বদলের সময়ই ব্যাট ঘুরিয়ে উল্লাস শুরু করেন মিসবাহ। এরপর হেলমেট খুলে পাকিস্তানের ড্রেসিং রুমে ‘স্যালুট’ দেন। এরপর গুনেগুনে দশটি বুক ডন (পুশ আপ) দেন মিসবাহ। বুঝিয়ে দিলেন, ‘এখনো ‘বুড়ো’ হয়নি। অনেক কিছু দেওয়ার, দেখানোর বাকি আছে!’ লর্ডসে উপস্থিত ক্রিকেটপ্রেমিরা দাঁড়িয়ে সম্মান জানাতে কাপর্ণ্য করেননি। ড্রেসিং রুমের বারান্দায় হাফিজ, আমির, ইউনুস ও ওয়াহাব রিয়াজরা উল্লাসে ফেটে পড়েন। কমেন্ট্রি থেকে বলছিল,‘অ্যাবসুলেটলি ফ্যান্টাসটিক। কিপ গোয়িং।’
লর্ডসের বৃহস্পতিবার সেঞ্চুরির দিনে ১১০ রানে অপরাজিত থাকেন মিসবাহ। কী পাননি এ সেঞ্চুরিতে। অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি বয়সে সেঞ্চুরির গড়ার রেকর্ড গড়েন মিসবাহ। লর্ডসে যখন ব্যাট হাতে নামেন তখন নামের পাশে ৪২ বছর ৪৭ দিন লিখা। নামের প্রতি সুবিচার করতে একটুও আপোষ করেননি।
ঠিকই তিন অঙ্কের ম্যাজিকাল ফিগার ছুঁয়েছেন। কড়া শাসন করেছেন চার ইংলিশ পেসার ও এক স্পিনারকে। মিসবাহের আগে অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি বয়সে সেঞ্চুরি করেছিলেন বব স্পিসন। ১৯৭৮ সালে ৪১ বছর ৩৫৯তম দিনে সেঞ্চুরি হাঁকান অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক। ৩৮ বছর পর মিসবাহ এ রেকর্ড ভেঙে নিজেকে শীর্ষে উঠিয়েছেন।
এছাড়া ষষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে ‘বুড়ো’ বয়সে সেঞ্চুরি করেছেন তিনি। ইংলিশ ব্যাটসম্যান স্যার জ্যাক হবস ১৯২৯ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মেলবোর্নে ৪৬ বছর ৮২তম দিনে সেঞ্চুরি করেন।
এদিকে ইংল্যান্ডের মাটিতে অভিষেক ম্যাচে তৃতীয় পাকিস্তানি অধিনায়ক হিসেবে সেঞ্চুরি করেছেন মিসবাহ। এর আগে হানিফ মোহাম্মদ (১৮৭), জাভেদ মিঁয়াদাদ (১৫৩) ইংল্যান্ডে নিজেদের অধিনায়কত্বের প্রথম ম্যাচেই সেঞ্চুরি করেছিলেন।
আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৭৭ রানে ৩ উইকেট হারায় পাকিস্তান। শুরুতেই মিসবাহ নড়বড়ে। প্রথম ২ রান করেন ১৯ বলে। স্টিভেন ফিনের বলে ১৬ রানে জো রুটের হাতে জীবন পান মিসবাহ। হাফসেঞ্চুরির পর ৫৮ রানে আসাদ শফিকের সঙ্গে ভুলবুঝাবুঝিতে রান আউট থেকে বেঁচে যান। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।
মঈন আলীর এক ওভারে চারটি বাউন্ডারি হাঁকাতে ভয় পাননি মিসবাহ। ৯৫ থেকে ৯৯ পৌঁছেছেন মঈন আলীকে সুইপ মেরে। সেঞ্চুরির পাশাপাশি দলকে ভালো জায়গায় নিয়ে গেছেন মিসবাহ। কিন্তু লর্ডসের প্রথম দিনের শেষ বলে সতীর্থ রাহাত আলীর বোকামিতে স্তব্ধ পাক অধিনায়ক! দিনের শেষ বলে ‘অযথা’ নিজের উইকেট হারান রাহাত আলী।

mesbah.jpeg

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s