Gurgaon.jpgভারী বৃষ্টিপাতে কারণে ভারতের বানিজ্য নগর গুরগাঁওয়ের সড়কগুলোতে প্রচন্ড যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আর প্রযুক্তি নগর ব্যাঙ্গালুরুতে সড়কে চলছে নৌকা। বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে যাওয়া ব্যাঙ্গালুরুর সড়কগুলোতে আটকে পড়া লোকজনকে নৌকায় করে উদ্ধার করছে ফায়ার ডিপার্টমেন্টের উদ্ধারকর্মীরা। সেখানে লোকজনকে সড়কে জাল ফেলে মাছ ধরতেও দেখা গেছে।
অন্যদিকে গুরগাঁওয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে শুরু হওয়া যানজট শুক্রবারও অব্যাহত রয়েছে। টুইটারে গুরগাঁও পুলিশ জানায়, গুরুত্বপূর্ণ ‘ক্রসিং’ হিরো হোন্ডা চক পানিতে ডুবে যাওয়ায় গুরগাঁওয়ের মহাসড়ক ও প্রধান সড়কগুলোতে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যন্ত্রের মাধ্যমে সড়কগুলো থেকে দ্রুত পানি সরিয়ে ফেলার চেষ্টা করা হচ্ছে।
ভারতের যোগাযোগমন্ত্রী নিতিন গাডকারি ন্যাশনাল হাইওয়ে চিফকে যানজট নিরসনে একটি দলকে গুরগাঁওয়ে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।
গুরগাঁও পুলিশ দিল্লির বাসিন্দাদের সেখানে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে। এছাড়া দিল্লির বিদ্যালয়গুলো দুইদিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করার আহ্বানও জানানো হয়েছে।
ভূক্তভোগীদের একজন স্থানীয় এনডিটিভিকে বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তিনি অফিস থেকে বের হন এবং প্রায় ১২ ঘণ্টা পর শুক্রবার সকালে বাড়িতে পৌঁছান।
এনডিটিভি জানায়, লোকজন ঘণ্টার পর ঘণ্টা গাড়িতে বসে আছে। জ্বালানি শেষ হয়ে যাওয়ায় অনেককে রাস্তায় গাড়ি ফেলে রেখে বাড়ির পথে রওয়ানা হতে দেখা গেছে।পুলিশ জানায়, পরিত্যক্ত ওই সব গাড়ির কারণে যানজট পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে।
এনডিটিভির খবরে বলা হয়, গুরগাঁওয়ের পুলিশ প্রধান নভোদীপ পারেক  একটি মটোরসাইকেলে করে যানজটপূর্ণ এলাকা পরিদর্শন করেন।
কংগ্রেস নেতা রনদীপ সূর্যাওয়ালা টুইটারে লেখেন, “দিল্লি থেকে গুরগাঁওয়ের তুলনায় দিল্লি থেকে নিউ ইয়র্ক তাড়াতাড়ি পৌঁছান যায়। বিজেপি এবং খাট্টার সরকার গুরগাঁওকে ধ্বংস করে ফেলছে।”
টুইটারে অন্য একজন ব্যঙ্গ করে লেখেন, “মিলেনিয়াম সিটি গুরু-জ্যাম’ এবং বিশ্বের সবচেয়ে বড় পার্কিং লট।”