brazil-olympic.jpgঅবশেষে গোলের দেখা পেল ব্রাজিল। রিও অলিম্পিকের লড়াইয়ে টিকে থাকতে জয় ছাড়া বিকল্প ছিলনা ব্রাজিলের। অপেক্ষাকৃত দুর্বল প্রতিপক্ষের সঙ্গে প্রথম দুই ম্যাচ ড্রয়ের পর ঘরের মাঠে ‘সম্মান’ বাঁচানোর লড়াইয়ের ম্যাচে ডেনমার্ক ছিল অনেকটা শক্ত প্রতিপক্ষ। তবে দুর্দান্ত জয়ে ‘এ’ গ্রুপ শীর্ষ হয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করলো পাঁচবারের বিশ্বকাপ জয়ীরা।
ফরোয়ার্ড গ্যাব্রিয়াল বারবোসার জোড়া গোলে ডেনমার্ককে ৪-০ গোলে হারায় নেইমাররা। পরে সঙ্গ দেন জেসাস ও লুয়ান।
দুই ম্যাচ গোল শূন্য ড্রয়ের পর সালভাদরের মাঠে ‘যুদ্ধক্ষেত্র’ পরিণত হওয়া ম্যাচে এবার ঠিকই ডেনমার্কের জাল খুঁজে পায় সেলেকাওরা। জয় ছাড়া কোনো বিকল্প নেই এটা মাথায় নিয়েই সেলেকাওরা যে মাঠে নেমেছিল শুরু থেকেই তাদের আক্রমণে তা স্পষ্ট হয়ে ওঠে।
বারবোসা, জেসাস ও নেইমার ‘ত্রয়ী’র একের পর এক আক্রমণে দিশেহারা ডেনিশ ডিফেন্ডাররা গোল পরিশোধে তাদের ফরোয়ার্ডের জন্য পুরো ম্যাচে কোনো রসদই যোগাতে পারেনি। ফলে চার গোল হজম করেই মাঠ ছাড়তে হয় তাদের।
কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আমেরিকার দেশ কলম্বিয়া।

আর্জেন্টিনাকে বিদায় করে শেষ আটে হন্ডুরাস

Argentina-v-Honduras.jpgরিও অলিম্পিকের আসর থেকে বিদায় নিয়েছে ফেভারিট আর্জেন্টিনা। অলিম্পিক ফুটবলে টিকে থাকতে জয়ের বিকল্প ছিল না আর্জেন্টিনার। অসংখ্য সুযোগ নষ্ট করে হন্ডুরাসের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হয়েছে ২০০৪ ও ২০০৮ আসরের চ্যাম্পিয়নদের।
ফিফা ৠাংকিংয়ের তলানির দল হন্ডুরাসের বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করায় রিও’র আসর থেকে বাদ পড়লো আর্জেন্টিনা। এদিন ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে পেনাল্টি থেকে পিছিয়ে পড়ে আলবেসেলিস্তারা। তবে খেলার অতিরিক্ত সময়ে ফ্রি-কিক থেকে সমতায় আসলেও ততক্ষণে বিদায় নিশ্চিত হয়ে ‍যায় তাদের।
একই দিন অবশ্য বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মেক্সিকোরও বিদায় হয়েছে গ্রুপ পর্ব থেকেই। দক্ষিণ কোরিয়া ১-০ গোলে হারিয়ে দিয়েছে ২০১২ অলিম্পিকের  চ্যাম্পিয়নদের। জার্মানি ১০-০ গোলে ফিজিকে উড়িয়ে দিয়ে চলে গেছে শেষ আটে। দক্ষিণ আফ্রিকা-ইরাক ম্যাচটি ১-১ ড্র। তবে এবার দুই দলই বাড়ির পথ ধরল! হেরে গিয়েও ব্রাজিলের সঙ্গী হিসেবে শেষ আটে উঠল ডেনমার্ক।
কোয়ার্টার ফাইনালে পর্তুগাল মুখোমুখি হবে জার্মানির, হন্ডুরাস দক্ষিণ কোরিয়ার, ব্রাজিল কলম্বিয়ার আর নাইজেরিয়া মুখোমুখি হবে ডেনমার্কের।

Advertisements