ZIDANE.jpgকার্লো আনচেলোত্তির বিদায়ের পর রিয়াল মাদ্রিদে জিনেদিন জিদানের সামর্থ্য নিয়ে শঙ্কায় ছিলেন অনেকেই। কিন্তু চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ের পর জিদান সম্পর্কে ধারণা পাল্টে চায় নিন্দুকদের। সম্প্রতি রিয়ালের হয়ে সাফল্য অব্যাহত রেখে ইতিহাসের পাতায় নাম লিখিয়েছেন ফরাসি এই জীবন্ত কিংবদন্তি।
উয়েফা সুপার কাপে শিরোপা জয়ের মধ্য দিয়ে নতুন ইতিহাসে নাম লিখিয়েছেন জিদান। সেভিয়ার বিপক্ষে ওই ম্যাচে দলের বড় তারকা রোনালদো এবং বেলরা না থাকলেও শিরোপা জিততে সমস্যা হয়নি রিয়ালের। মঙ্গলবারের আগে খেলোয়াড় এবং কোচ হিসেবে এই শিরোপা জয়ীর সংখ্যা ছিল পাঁচজন। সর্বশেষ সেভিয়ার বিপক্ষে শিরোপা জিতে ষষ্ঠ ব্যক্তি হিসেবে ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নিয়েছেন জিদান।
খেলোয়াড় এবং কোচ হিসেবে এই শিরোপা জিতে প্রথম ইতিহাস গড়েছিলেন ইয়োহান ক্রুইফ। ১৯৭০ সালে আয়াক্সের হয়ে শিরোপা জয়ের পর বার্সেলোনার হয়েও একই ইতিহাস তৈরী করেন ক্রুইফ। এরপর এই ডাচম্যানের পদাঙ্ক অনুসরণ করেন কার্লো আনচেলোত্তি। খেলোয়াড় হিসেবে ১৯৮৯ এবং ১৯৯০ সালের পর কোচ হিসেবে ২০০৩ এবং ২০০৭ সালে এসি মিলানকে উয়েফা সুপার কাপের শিরোপা জেতান তিনি।
এরপর বার্সেলোনার খেলোয়াড় হিসেবে সেই ইতিহাসের অংশ হন  পেপ গার্দিওলা এবং বর্তমান কোচ লুইস এনরিকে। খেলোয়াড় এবং কোচ হিসেবে উয়েফা সুপার কাপ জয়ের তালিকায় রয়েছেন দিয়েগো সিমিওনেও।
মঙ্গলবার সেভিয়ার বিপক্ষে শিরোপা জিতে সেই অনন্য অবস্থানটিতে জায়গা করে নিলেন জিদান। ২০০২ সালে রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে ফেইনুর্ডের বিপক্ষে শিরোপা জিতেছিলেন জিদান। ১৪ বছর পর কোচ হিসেবে রিয়ালের হয়ে উয়েফা সুপার কাপের শিরোপা জিতে ইতিহাসের পাতাত জায়গা করে নিলেন ফরাসি কিংবদন্তি।