বৃথা গেল বাবর আজমের সেঞ্চুরি


রেকর্ড জুটিতে অস্ট্রেলিয়ার সহজ জয়

babor-azom

ডেভিড ওয়ার্নার ও ট্র্যাভিস হেডের ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিংয়ে বিশাল সংগ্রহ গড়া অস্ট্রেলিয়া পেয়েছে সহজ জয়। চমৎকার এক শতক করেও দলকে জেতাতে পারেননি বাবর আজম।পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়ার জয় ৫৭ রানের। ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ ঘরে তুলেছে দলটি।
সিরিজটা আগেই পকেটে পুরেছিল অস্ট্রেলিয়া। আনুষ্ঠানিকতার শেষ ম্যাচেও পাকিস্তানকে বড় ব্যবধানে হারাল স্টিভ স্মিথের দল। অ্যাডিলেড ওভালে অস্ট্রেলিয়ার জয়টা ৫৭ রানের। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ৩৬৬ রান করেছিল অস্ট্রেলিয়া। জবাবে বাবর আজমের শতকে ৫ বল বাকি থাকতে ৩১২ রানে গুটিয়ে যায় পাকিস্তান। টেস্টে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর ওয়ানডেতেও ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ খোয়াল সফরকারীরা।
অ্যাডিলেডের মাঠটা এমনিতেই অনেক বড়। চারপাশের বাউন্ডারি প্রায় ৮০ গজের মতো। তবে ওয়ার্নার যেদিন ছন্দে থাকেন সেদিন সব মাঠই তাঁর কাছে ছোট। অ্যাডিলেডের বিশাল সীমানাকে ছোট করে দিয়ে ১২৮ বলে ১৭৯ রান করেন ডেভিড ওয়ার্নার। সঙ্গে ট্রেভিস হিডের ১২৮ রানের দৃষ্টিনন্দন ইনিংসে পাকিস্তানের হারটা আগেই নির্ধারিত হয়ে যায়। তবে বাবর আজম ও শারজিল খান চেষ্টার কমতি করেননি। ১০ রানে আজহার আলীর উইকেট হারানোর পর ১৩০ রানের জুটি বেঁধে পাকিস্তানকে জয়ের কক্ষপথে রাখেন এই দুজন। দলীয় ১৪০ রানে শারজিল ফিরে গেলেও অপরপ্রান্ত আগলে রাখেন বাবর। শতক পূর্ণ করার পরের বলেই আউট হয়ে যান এই স্টাইলিশ ব্যাটসম্যান। পাকিস্তানের আশা-ভরসাও শেষ হয়ে যায় সেখানেই। এর আগে শোয়েব মালিক আহত হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান। শেষ পর্যন্ত ৪৯.১ ওভারে ৩১২  রানে অলআউট হয় পাকিস্তান। মিচেল স্টার্ক ৪২ রানে নেন ৪ উইকেট।
আজ অ্যাডিলেডে ওয়াহাব রিয়াজ, মোহাম্মদ আমিরদের দর্শক বানিয়ে একের পর এক চার-ছয় মেরে গেছেন ওয়ার্নার। ২৮৪ রানে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ফিরে যাওয়ার আগে ১৭৯ রানের জ্বলজ্বলে একটি ইনিংসে খেলেছেন তিনি। আউট হওয়ার সময় কিছুটা আক্ষেপও সঙ্গী হয়েছে এই ব্যাটসম্যানের। কারণ, বিশ্বরেকর্ড থেকে মাত্র দুই রান দূরে ছিলেন তিনি। এর আগে ২০০৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লিডসে ২৮৬ রানের জুটি বাঁধেন উপুল থারাঙ্গা ও সনাথ জয়সুরিয়া। এই রেকর্ড ভাঙার নিশ্বাস দূরত্বে ছিলেন ওয়ার্নার-হেড জুটি। বিশ্বরেকর্ড না হলেও দেশের হয়ে নতুন রেকর্ড গড়েছেন ওয়ার্নার ও হেড। এর আগে ২০১৩ সালে শন মার্শ ও অ্যারন ফিঞ্চের করা ২৪৬ রানই ছিল উদ্বোধনী জুটিতে অস্ট্রেলিয়ার সেরা জুটি। আজ সেটাকে নতুনভাবে গড়লেন ওয়ার্নার-হেড জুটি।
আজ নিজের সর্বোচ্চ ১৭৮ রানের রেকর্ডটাকে ছাড়িয়ে গেলেন ওয়ার্নার। গত বছর আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১৩৩ বলে ১৭৮ রান করেন তিনি। আর ছয় রান করলে বাংলাদেশের বিপক্ষে করা শেন ওয়াটসনের ১৮৫ রানের রেকর্ডটা ভাঙতে পারতেন ওয়ার্নার। ওয়ানডেতে কোনো অসি ব্যাটসম্যানের এটিই সর্বোচ্চ রান। এ মৌসুমে ওয়ানডেতে ওয়ার্নারের এটি ষষ্ঠ সেঞ্চুরি। গত মৌসুমে ছয় সেঞ্চুরি করেছিলেন কুমার সাঙ্গাকারা। তবে সাঙ্গার রেকর্ডটা বোধ হয় আর বেশিদিন টিকবে না। কারণ, এই মৌসুমে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আরো তিনটি ওয়ানডে খেলবেন ওয়ার্নার। আর একটি সেঞ্চুরি হলেই ওয়ানডেতে এক মৌসুমে সবচেয়ে বেশি শতক করার রেকর্ডটি নিজের করে নেবেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। ওয়ার্নারের ১৭৯ ও ট্রাভিস হিডের ১২৮ রানে ভর করে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩৬৯ রানের পাহাড় গড়েন স্বাগতিকরা। বাকিদের মধ্যে ফকনার ১৮ ও ম্যাক্সওয়েল ১৩ রান করেন।

Advertisements

About Emani

I am a professional Graphic designers create visual concepts, by hand or using computer software, to communicate ideas that inspire, inform, or captivate consumers. I can develop overall layout and production design for advertisements, brochures, magazines, and corporate reports.
This entry was posted in Cricket (ক্রিকেট). Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s