bribe ghushবিশ্বের সব দেশেই ঘুষ দেয়া-নেয়ার ঘটনা ঘটে। কাজ পাওয়ার জন্য বা অপরাধ থেকে বেঁচে যেতে ঘুষ দেয়া-নেয়ার ঘটনা হরহামেশাই ঘটছে। ঘুষ দেওয়া নেওয়া উন্নয়নশীল দেশগুলোতে অনেকটা ওপেন সিক্রেট। ঘুষ না দিলে নড়েনা অফিসের ফাইল, থেমে যায় কাজের অগ্রগতি। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের একটি জরিপে উঠে এসেছে কোন দেশে ঘুষের পরিমাণ সবচেয়ে কম এবং কোন দেশে সবচেয়ে বেশি। দেখা যায়, ঘুষের পরিমাণ সবথেকে কম জাপানে। আর বেশি আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতে! আন্তর্জাতিক দুর্নীতি পর্যবেক্ষক সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়েছে।
প্রতি ১০ জন নাগরিকের ৭ জনকেই কোনো না কোনো কারণে ঘুষ দিতে হয়। জাতীয় এই দুর্নীতির পরিমাণ সবথেকে কম জাপানে। আন্তর্জাতিক দুর্নীতি পর্যবেক্ষক সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়েছে।
সম্প্রতি ১৬টি এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশের মধ্যে এই সমীক্ষা চালানো হয়েছে। সমীক্ষার তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে ঘুষ চাওয়ার প্রবণতা সবচেয়ে বেশি ভারতে। জন্ম থেকে মৃত্যু, স্কুল বা হাসপাতালে ভর্তি, সরকারি দপ্তর, পুলিশ বা আদালতে কোনো কাজ করাতে গেলে ঘুষ দিতেই হয়।
অন্যদিকে, চীনের মতো দেশে ঘুষ দেয়া হয় বিভিন্ন বাড়তি সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার জন্য। জাপানে দুর্নীতির পরিমাণ সবচেয়ে কম। সেখানে ঘুষ চাওয়ার প্রবণতাও কম। সমীক্ষা বলছে, জাপানে মাত্র ০ দশমিক ২ ভাগ মানুষকে বিভিন্ন পরিষেবা পেতে ঘুষ দিতে হয়।
সমীক্ষা রিপোর্টে ভারতের পরেই রয়েছে ভিয়েতনাম। সেখানে ৬৫ ভাগ মানুষের ঘুষ দেওয়ার অভিজ্ঞতা হয়েছে। এদিকে, সমীক্ষায় জানানো হয়েছে চীনে ৭৩ ভাগ মানুষ মনে করেন ঘুষের ঘটনা সেদেশে কমতে শুরু করেছে।
ভারতে সবচেয়ে বেশি ঘুষ দিতে হয় স্বাস্থ্যক্ষেত্রে। এর পরেই শিক্ষাক্ষেত্র। স্বাস্থ্যক্ষেত্রে ৫৯ ভাগ এবং শিক্ষাক্ষেত্রে ৫৮ ভাগ মানুষকে ঘুষ দিতে হচ্ছে।

Advertisements