মেসির কারাদণ্ড বহাল, জেল হতে পারে রোনালদোরও


MESSI_RONALDOকর ফাঁকির মামলায় লিওনেল মেসির আপিল প্রত্যাখান করে দিয়েছে স্পেনের আদালত। করফাঁকির মামলায় লিওনেল মেসি ও তাঁর বাবা জর্জকে ২১ মাসের কারদ-ের সাজা দিয়েছিল বার্সেলোনার আদালত। এ বছর ২০ এপ্রিল রিয়েল মাদ্রিদের বিরুদ্ধে এল ক্লাসিকোতে দূর্দান্ত নৈপুণ্য দেখানোর প্রাক্কালে আদালত এ রায় দেয়।
এরপর সেই নির্দেশের বিরুদ্ধে দেশের শীর্ষ আদালতে আপিল করেন মেসি। কিন্তু গত বুধবার আদালত সেই আপিল খারিজ করে দেন। ফলে বার্সেলোনা আদালতের কারাদ-ের নির্দেশ বহাল থাকল।
২১ মাস কারাদন্ডের সাথে আদালত মেসিকে ২০ লাখ ইউরো ও তার বাবা জর্জকে ১৫ লাখ ইউরো জরিমানা করেছিল, তাও পরিশোধ করতে হবে পিতা-পুত্রকে।
করফাঁকির মামলায় মেসিকে জেলে যেতে হচ্ছে এ চিন্তা করে -এ ফুটবল তারকার ভক্তদের মধ্যেও সৃষ্টি হয়েছে উদ্বিগ্নতা।
আন্তর্জাতিক এ ফুটবল তারকার বিরুদ্ধে অভিযোগ, ২০০৭ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত প্রায় ৪৭ লাখ ইউরো কর ফাঁকি দিয়েছেন তিনি।
২০১৩ সালে সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা যায়, উরুগুয়েতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিপুল পরিমান অর্থ বিনিয়োগ করেন মেসি ও তার বাবা। ধারণা করা হচ্ছে কর ফাঁকির অর্থ দিয়েই তারা এসব প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করেন। এরপরেই মেসি ও তার বাবার বিরুদ্ধে এ নিয়ে তদন্ত শুরু হয়।
তবে আশার কথা হচ্ছে স্পেনের আইনে শাস্তির সাজা ২ বছরের কম হলে হাজতবাস করতে হয় না কারাদ-প্রাপ্তদের। সেদিক দিয়ে এ সাজা ভোগ করতে কারাগারে যেতে হবে না আর্জেন্টিনার এ ফুটবলার ও তাঁর বাবাকে। তবে এ রায়ের কারণে মেসির ভাবমূর্তিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে মনে করছেন সমালোচকরা।

জেল হতে পারে রোনালদোরও
ফুটবলীয় কারণ ছাড়াও প্রায়ই শিরোনামে আসছে স্প্যানিশ লিগের ফুটবলাররা। কর ফাঁকির মামলায় বার্সেলোনার তারকা ফুটবলার লিওনেল মেসি ও নেইমারের এখন ত্রাহি অবস্থা। অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় মেসিকে দেওয়া হয়েছিল ২১ মাসের কারাদ-। পাল্টা আপিলও করেছিলেন মেসি। কিন্তু তাতেও কোনো লাভ হয়নি। এই ২১ মাসের কারাদ-ের রায় বহাল রেখেছেন স্পেনের সুপ্রিম কোর্ট। একই অবস্থা নেইমারেরও। দুই বছরের জেল হতে পারে ব্রাজিল তারকার। এবার রিয়াল মাদ্রিদ তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর কর ফাঁকি অভিযোগের তদন্তে নামছে দেশটির সরকার।
স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘মার্কা’ জানিয়েছে, ২০১১ থেকে ২০১৩ সালে রোনালদোর বিপক্ষে আট মিলিয়ন ইউরো কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। ঘটনার সত্যতা প্রমাণ হলে প্রতিবছরের জন্য তিনি চার মাসের সাজা পাবেন রোনালদো। তবে এ জন্য অবশ্য জেলে যেতে হবে না সিআরসেভেনকে। কারণ স্প্যানিশ আইনানুযায়ী, ২৪ মাসের কম সাজা হলে তাঁকে জেলে যেতে হয় না।
এর আগে গত বছর রোনালদোর বিরুদ্ধে ১৫০ মিলিয়ন পাউন্ড কর ফাঁকির অভিযোগ ওঠে। কেবল সিআর সেভেনে রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক কোচ হোসে মরিনহো ও রোনালদোর এজেন্ট জর্জ মেন্ডেসের বিরুদ্ধেও কর ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে। যদিও রোনালদো ও মরিনহো এরই মধ্যে তাঁদের বিরুদ্ধে আনা এই অভিযোগের প্রতিবাদ করেছেন। রোনালদোর পক্ষে রিয়াল মাদ্রিদও এই ঘটনার প্রতিবাদ করেছে।
পাঁচ বছর পর প্রথবারের মতো লা লিগার শিরোপা জিতে বেশ ফুরফুরে অবস্থায় রয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। আগামী ৩ জুন কার্ডিফে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে জুভেন্টাসের বিপক্ষে মাঠে নামবে রিয়াল মাদ্রিদ। ইউরোপ সেরার ফাইনালের আগে এমন ঘটনা রোনালদোকে কিছুটা বিব্রতই করছে।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s