trumpযুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে কংগ্রেসের প্রায় ২০০ জন ডেমোক্র্যাটি আইনপ্রণেতা মামলা করেছেন।তাদের অভিযোগ ট্রাম্প নিজস্ব ব্যবসার মাধ্যমে বিভিন্ন দেশের সরকারের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণ করেছেন, যা সংবিধান বহির্ভূত।
গত বুধবার ফেডারেল কোর্টে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এ মামলা করা হয়। কংগ্রেসের অনুমোদন ছাড়া ক্ষমতাসীন কোনো প্রেসিডেন্টের এ ধরনের অর্থ গ্রহণ সংবিধানের লঙ্ঘন বলে দাবি করেছেন আইনপ্রণেতারা।
আইনপ্রণেতারা তাদের অভিযোগে বলেছেন, জানুয়ারি মাসে ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে অসংখ্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মাধ্যমে বিদেশি সরকারের কাছ থেকে অর্থ নিয়েছেন ট্রাম্প। কিন্তু এ জন্য তিনি কংগ্রেসের অনুমোদন চাননি, যা তিনি চাইতে পারতেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে তাক্ষণিকভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি হোয়াইট হাউস। তবে তাদের ভাষ্য, ট্রাম্পের ব্যবসায়িক স্বার্থ সংবিধান লঙ্ঘন করে না। ট্রাম্প অর্গানাইজেশন জানিয়েছে, বিদেশি সরকারের প্রতিনিধিত্ব স্বরূপ কাস্টমারদের কাছ থেকে পাওয়া মুনাফা রাজকোষে দান করা হবে।
কমপক্ষে ৩০ জন সিনেটর ও প্রতিনিধি পরিষদের ১৬৬ জন সদস্য বুধবার ট্রাম্পবিরোধী এ মামলায় বাদী হয়েছেন। কোনো প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে এতজন আইনপ্রণেতার একসঙ্গে মামলা করার ঘটনা এটিই প্রথম।
যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুযায়ী, কংগ্রেসের অনুমোদন ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের কোনো সরকারি কর্মকর্তা বিদেশি সরকারের দেওয়া অর্থ ও উপহারসামগ্রী গ্রহণ করতে পারে না। কিন্তু প্রেসিডেন্ট সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জানাতে ব্যর্থ হয়েছেন বলে দাবি করেছেন মামলাকারী আইনপ্রণেতারা।
সাম্প্রতিক মাসগুলোতে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আরো কয়েকটি পক্ষ একই ধরনের মামলা করেছে। একটি অলাভজনক নীতিগোষ্ঠী, একটি রেস্টুরেন্ট ট্রেড গ্রুপ এবং মেরিল্যান্ড ও ডিস্ট্রিক্ট অব কলাম্বিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল এসব মামলা করেছেন। তাদের অভিযোগ, সরকারে থেকে বিদেশি সরকারের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে প্রেসিডেন্ট ব্যক্তিগত ব্যবসার প্রসার ঘটাচ্ছেন।
তবে এ বিষয়ে মন্তব্য করতে রাজি হয়নি বিচার বিভাগ।
তথ্যসূত্র : রয়টার্স অনলাইন

Advertisements